নিউজপ্রেসবিডি । NewsPressBD
সত্য, সম্পূর্ণ সত্য এবং কেবলমাত্র সত্য

দেশের রাজনীতিতে নির্বাচনী হাওয়া – জোট গঠনের তোড়জোড়

নির্বাচনকালীন সরকারে টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী থাকছে না - কাদের

৩৬

বাংলাদেশের রাজনীতিতে নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যে ডঃ কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া এবং বিএনপি’র নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত করা হয়েছে। সরকারী দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট গঠনের কথা বলা হচ্ছে। বিএনপি তাদের ২০ দলীয় জোটকে বৃহত্তর জোট বলে আখ্যায়িত করেছে। জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার প্রশ্নে ড. কামাল হোসেন আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনকালীন সরকার অতীতের মতই ছোট হবে। তবে এই সরকারে কোন টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী থাকছেন না।কাদের জানান, এব্যাপারে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছেন।

- বিজ্ঞাপন -

আজ সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়র সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই তথ্য প্রকাশ করেন। একইসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, এবারের নির্বাচনকালীন সরকারে শুধু জাতীয় সংসদে যাদের প্রতিনিধিত্ব রয়েছে তারাই স্থান পাবে। জাতীয় পার্টি এবারের স্বল্প মেয়াদী সরকারে তাদের প্রতিনিধির সংখ্যা ২/৩ জন বাড়ানোর আবাদর করেছ। এব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীই শেখ হাসিনাই সিদ্ধান্ত দেবেন। এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অন্তত ৬৫ আসন শরীক দলগুলোর জন্যে ছেড়ে দেবে। জাতীয় পার্টি ইতিমধ্যেই বলেছে বিএনপি যদি নির্বাচনে না আসে তবে জাতীয় পার্টি আলাদাভাবে নির্বাচন করবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ অনেক ভাবনাচিন্তা করে এবার দলীয় মনোনয়ন দেবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরাসরি বিষয়টি দেখছেন এবং ইতিমধ্যেই কয়েকজন দলীয় মনোনয়ন দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন তাদের মনোনয়ন এখনো চূড়ান্ত হয়েছে একথা বলা যায় না।জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে এমন ব্যক্তিবর্গকে মনোনয়ন দেয়ার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। দলের ভেতরে কোনরকম আন্তঃকোন্দল মেনে নেয়া হবে না বলে উল্লেখ করেন তিনি। বিদেশী রাষ্ট্র বা সংস্থার চাপ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, সংবিধানসম্মত না হলে কোন চাপ আমরা মেনে নেব না। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিদেশীরা আমাদের সঙ্গেই আছেন।তাই তারা কোন অনৈতিক চাপ দেবেন না বলে আমার বিশ্বাস। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে কাদের বলেন, দেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে ড.কামাল হোসেন যে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কথা বলছেন তাকে একটি সাম্প্রদায়িক ঐক্য বলে অভিহিত কর যায়। এগুলো বিএনপি’র তর্জন গর্জন বলে মন্তব্য করেন তিনি। ১০ বছরে যারা কিছু করতে পারলো না, তারা দুই মাসে কিছু করতে পারবে না। খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা অনুমান করব আপনি এর সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি যদি চান তবে আপনি অপট-আউট করতে পারেন। স্বীকারআরও পড়ুন