নিউজপ্রেসবিডি । NewsPressBD
সত্য, সম্পূর্ণ সত্য এবং কেবলমাত্র সত্য

জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশ ঝুঁকিপূর্ণ

জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশ ঝুঁকিপূর্ণ দেশ এই কারনে যেবাংলাদেশে নির্বিবাদে বন কাটা হয়পাহাড় কেটে মাটি সরানো হয় অন্যত্রযেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা ইত্যাদির ভাগাড় গড়ে তোলা হয় যেসব স্থানে গ্যাস তৈরি হয় এবং পরিবেশ িপন্ন করে তোলে খালবিলনদী ভরাট করে দখল নিচ্ছে একশ্রেনীর মানুষফলে পানিপ্রবাহ বিঘ্নি হচ্ছে এবং ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের নদ-নদীগুলোয় জলপ্রবাহ হ্রাস পেয়েছেখরা মওসুমে বাংলাদেশকে কঠিন পরিস্থিতির মোকাবেল করতে হয় কৃষিতে জলসেচ দারুণভাবে বিঘ্নি হচেছময়লা জমে বুড়িগঙ্গা অব্যবহারযোগ্য নদীতে পরিনত হয়েছেওই পানিতে মাছ বেঁচে থাকতে পারছে নাঢাকাসহ অনেক শহর ময়লা আবার্জনার স্তুপ জমে পরিবেশ কলুষিত করেছে এবং বসবাসের জন্যে মোটেও উপযোগী নয় বলে জলবায়ুপরিবেশ বিশেষজ্ঞদের অভিমত রয়েছেপাহাড়বন না কাটার পরমর্ দেয়া হলে তা কেউ মানছে নাপ্রতিবছর অনেক নদী ভরাট রে দখলদারদের হতে চলে যাচ্ছেফলে বাংলাদেশে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ হচ্ছে একথা স্পষ্ট সমুদ্রের পানির উচ্চতা বাড়ছে এবং জলদুষণ হচ্ছে্রতিবছর বন্যা, খরা, জলোচ্ছ্বাস, ঘূরনিঝড় এবং সুনামির মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে গবেষণার উদ্ধৃতি দিয়ে িবিসি এক প্রতিবেদনে জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগে ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায বাংলাদেশ আছে বলে মন্তব্য করেছে

বিবিস’র প্রতিবেদনঃ বিবিসি’র এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ঝুঁকির মধ্যে থাকা শীর্ষ ১৫টি দেশের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে এর মধ্যে বাংলাদেশের নামও রয়েছে অন্যদিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগের সবচেয়ে কম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে কাতার নতুন একটি জরিপে দাবি করা হয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের ১৫টি দেশ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সর্বোচ্চ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ রয়েছে নবম স্থানে এছাড়া আছে ১৫টি দেশের মধ্যে ৯টি বিভিন্ন দ্বীপদেশ

গবেষকদের ২০১৮ সালে বিশ্ব ঝুঁকি প্রতিবেদনে ১৭২ টি দেশের ভূমিকম্প, সুনামি, হারিকেন এবং বন্যার ঝুঁকি বিশ্লেষণ করা হয়েছে এসব দুর্যোগ মোকাবিলা করার মতো সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সক্ষমতা যাচাই করা হয়েছে জার্মানির রুহর বিশ্ববিদ্যালয বোখাম এবং ডেভেলপমেন্ট হেল্প অ্যালায়েন্স নামে একটি জার্মান বেসরকারি মানবিক সংস্থা যৌথভাবে এই গবেষণা পরিচালনা করে

- বিজ্ঞাপন -

ঝুঁকিপূর্ণ ১৫ দেশের তালিকা:

এই জরিপে, গবেষকরা মূলত প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে শিশুদের দুর্দশার ওপর বিশেষভাবে জোর দিয়েছেনতাদের তথ্যমত িশ্বব্যাপী প্রতি চারটি শিশুর মধ্যে একটি দুর্যোগপ্রবণ এলাকায বসবাস করে জাতিসংঘের পরিসংখ্যানেও দেখা যায যে, গত বছর সংঘাতসংঘর্ষ বা প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বাস্তুচ্যুত হওয়া অর্ধেকেরও বেশি মানুষের বয়স ১৮ বছরের নীচে

ওয়ার্ল্ড রিস্ক রিপোর্ট ২০১৮ অনুয়ায়ী জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকা জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সমুদ্রের স্তর বেড়ে যাওয়াসহ আরা নানা কারণে তালিকার শীর্ষে রয়েছে বেশিরভাগ দ্বীপদেশের নাম এরমধ্যে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয ভানুয়াতু দ্বীপটি বিশ্বের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে বিবেচিত হয়েছিল, তারপরেই রয়েছে প্রতিবেশী দেশ টোঙ্গা তৃতীয অবস্থানে রয়েছে আরেক দ্বীপদেশ ফিলিপিন্স যার মোট লোকসংখ্যা প্রায সাড়ে ১০ কোটি

বাংলাদেশ আছে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকা দেশের তালিকায তবে জার্মান গবেষকরা মনে করেন ওশেনিয়া সার্বিকভাবে সবচেয়ে ঝুঁকিপ্রবণ অঞ্চল তাদের মতে আফ্রিকার দেশগুলো প্রাকৃতিক দুর্যোগে বিপর্যস্ত হিসেবে শীর্ষ ৫০টি দেশের তালিকায যেমন স্থান পেয়েছে তেমনি সামাজিক বিপর্যয়ের তালিকাভুক্ত ১৫টি দেশের মধ্যে ১৩টি আফ্রিকাভুক্ত

ঝুঁকি পরিমাপ করা হয কিভাবে, ঠেকানোর উপায কি?

এমন পরিস্থিতিকে গবেষকরা এমন চরম প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায প্রয়োজনীয প্রস্তুতি নেয়ার প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন এজন্য তারা উদাহরণ হিসেবে টানেন ইউরোপকে সম্প্রতি ইউরোপের দেশগুলোতে বসন্ত গ্রীষ্মকালে তীব্র দাবদাহ আঘাত হানে অনেক স্থানে খরা দেখা দেয়ায সেখানকার কৃষিখাত সরাসরি ক্ষতির শিকার হয়েছিল ইউরোপের দেশগুলো সে সময এই তাপদাহ মোকাবিলায যে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে সেগুলোকে ইতিবাচক উদাহরণ হিসাবে নেয়ার কথা বলছেন গবেষকরা গবেষকরা মূলত ভূমিকম্প, সুনামি বন্যায শিকার হওয়ার ঝুঁকি পরিমাপ করেছেন তবে ঝুঁকির এই সূচকে প্রাকৃতিক দুর্যোগের আশঙ্কার পাশাপাশি সেই দুর্যোগ মোকাবিলায সেই দেশ কতোটুকু প্রস্তুত সেটাও বিবেচনায নেয়া হয়। সেক্ষেত্রে হিসাব করা হয় সেই দেশগুলোয নির্মিত ভবনগুলোর পরিস্থিতি বা বিল্ডিং কোড, দারিদ্রসীমার মাত্রা এবং দুর্যোগ পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দেয়ার পরিকল্পনা কারণে প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ হওয়া সত্ত্বেও অনেক দেশের নাম ঝুঁকির তালিকায নেই যেমন প্রতিনিয়ত ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে থাকা জাপান এবং চিলি এই দুই দেশের নাম শীর্ষ ২০ ঝুঁকিপূর্ণ দেশের বাইরে রয়েছে

এছাড়া হল্যান্ড যারা কিনা শত শত বছর ধরে সমুদ্রের স্তর বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে যুদ্ধ করেছে অথচ ঝুঁকির তালিকায তাদের অবস্থান ৬৫টিতে আবার কাতার সবচেয়ে কম ঝুঁকিপ্রবণ দেশ

অন্যদিকে মিসরের মতো অন্যান্য দেশগুলোর প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার হওয়ার আশঙ্কা কম ঝুঁকির তালিকায দেশটির অবস্থান ১৬৬টিতে হলেও দুর্যোগ মোকাবিলা বিপর্যয়ের সূচকে তারা জাপানের চাইতেও খারাপ অবস্থানে রয়েছে কারণ দেশটি সামাজিকভাবে বিপর্যস্তজলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে ২০১৮ সালকে একটি সচেতনতার বছর বলে আখ্যা দিয়েছেন গবেষকরা মানুষের মধ্যে এবারই এটা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে চরম প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায প্রস্তুত থাকাটা কতো জরুরি

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না।

এই ওয়েবসাইটটি আপনার অভিজ্ঞতা উন্নত করতে কুকি ব্যবহার করে। আমরা অনুমান করব আপনি এর সাথে ঠিক আছেন, তবে আপনি যদি চান তবে আপনি অপট-আউট করতে পারেন। স্বীকারআরও পড়ুন